ফেসবুকে আমার বিরুদ্ধে লিখে খুনিদের বাঁচানোর চেষ্টা : মিন্নি

Sharing is caring!

অনলাইন ডেস্ক: বরগুনায় রাস্তায় ফেলে প্রকাশ্য দিবালোকে কুপিয়ে রিফাত শরীফ হত্যার ঘটনায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। হত্যাকাণ্ডের সময় রিফাতের স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি তাকে বাঁচানোর শত চেষ্টা করেও সফল হননি। মিন্নি ছাড়া কেউ রিফাতকে বাঁচাতে এগিয়ে আসেনি। তবে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে বিষয়টি মিশ্র প্রতিক্রিয়া চলছে। কেউ কেউ এ হত্যাকাণ্ডের নেপথ্যে রিফাতের স্ত্রীর সঙ্গে অভিযুক্ত ঘাতক নয়ন বন্ডের সম্পর্কের দিকটি দায়ী বলে ইঙ্গিত করেছেন। এর প্রতিবাদ জানিয়েছেন নববধূ মিন্নি।

তিনি বলেছেন, ‘ফেসবুকে আমাকে নিয়ে বিভিন্ন লেখালেখি হচ্ছে বলে আমি শুনেছি। এসব যারা করছেন, তারা সন্ত্রাসীদের বাঁচানোর জন্য আমাকে নিয়ে আজেবাজে মন্তব্য করছেন। এই হত্যাকাণ্ডকে সমর্থন করে এরাও খুনের সঙ্গে জড়িত বলে আমি মনে করি। প্রধানমন্ত্রী ও এ দেশের মানুষের কাছে আমার একটিই দাবি- যারা এমন আজেবাজে কথা বলছেন, তাদের যেন শাস্তি দেয়া হয়।’

শনিবার রাত ৮টার দিকে বরগুনা পৌর শহরের মাইঠা এলাকায় নিজ বাসভবনে গণমাধ্যমকে এসব কথা বলেন তিনি।

রিফাতকে ভালোবেসে বিয়ে করেছেন জানিয়ে মিন্নি বলেন, ‘আমাদের বিয়ের বয়স দুই মাস। কিন্তু দুই-তিন বছর আমাদের মধ্যে ভালোবাসার সম্পর্ক ছিল। আমরা একজন-আরেকজনকে ভালোবাসতাম। বিষয়টি আমাদের পরিবারকে জানালে দুই মাস আগে আমাদের আনুষ্ঠানিক বিয়ে হয়। আমার স্বামীকে সন্ত্রাসীরা চোখের সামনে কুপিয়ে হত্যা করল।’

নয়ন দীর্ঘদিন ধরে তাকে উত্ত্যক্ত করে আসছেন জানিয়ে মিন্নি বলেন, ‘আমি তো আগেই বলেছি- বিয়ের আগে ও পরে নয়ন আমাকে রাস্তাঘাটে বিরক্ত করত। জোর করে আমার রিকশায় ওঠত। আমার সঙ্গে ছবি তুলত।’

এসব জেনেও যারা রিফাত হত্যায় নয়ন-মিন্নির কথিত সম্পর্ককে দায়ী করছেন, সেসব ফেসবুক স্ট্যাটাসকারীদের উদ্দেশ্যে স্বামীহারা এই গৃহবধূ বলেন, ‘ভাই, আপনারা এসব বাদ দিয়ে একটু খুনিদের ধরতে সহযোগিতা করুন।’

তিনি আরও বলেন, ‘শুক্রবার বিকালে বরগুনা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে এসব কথা সাংবাদিকদের জানানোর কথা ছিল। কিন্তু অসুস্থতার কারণে আমি প্রেসক্লাবে গিয়ে সংবাদ সম্মেলন করতে পারিনি।’

নৃশংস এই হত্যকাণ্ডে জড়িত সবার ফাঁসির দাবি জানিয়েছেন আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি।

About banglarmukh official

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*