কোটি টাকা লেনদেন, এবার প্রক্টর-ছাত্রলীগ নেতার ফোনালাপ ফাঁস

Sharing is caring!

এবার ফাঁস হলো জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ও বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের এক নেতার ফোনালাপের অডিও। একের পর এক অডিও ফাঁসের ঘটনায় ক্যাম্পাসে চলছে আলোচনা-সমালোচনা।

কোটি টাকা লেনদেন নিয়ে ছাত্রলীগের সদ্য সাবেক সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী ও বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ নেতার ফোনালাপ ফাঁসের কয়েক ঘণ্টা পরই নতুন এ অডিও ফাঁস হয়।

প্রক্টরের ফোনের অপর প্রান্তে ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সহসভাপতি হামজা রহমান অন্তর। হামজা নিজেই এ ফোনালাপ ফাঁস করেন। ফোনালাপের একপর্যায়ে অন্তর বলেন, ‘টাকার কথা এখন টক অব দ্য টাউন। এটা তো অস্বীকার করার কিছু নাই স্যার।’

ছাত্রলীগের পদ হারানোর আগে অন্তরের মোবাইল ফোন দিয়ে টাকা লেনদেনের খবর নিয়েছিলেন রাব্বানী। টাকার বিষয়ে জানতেই প্রক্টর ফিরোজ-উল-আলমকে ফোন করেন অন্তর। তাদের ফোনালাপেও টাকা লেনদেনের তথ্য ওঠে আসে। লেনদেনের অডিও ভাইরালের পর জাবি ছাত্রলীগের এই নেতা খোলা চিঠিও দিয়েছেন।

কথোপকথনের সময় অন্তর দৃঢ়তার সঙ্গে প্রক্টরকে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪৫ ব্যাচ পর্যন্ত এই টাকার ভাগ পেয়েছে। এটি অস্বীকার করার কিছু নাই স্যার।

প্রক্টর ফিরোজ-উল-আলম ও হামজা রহমান অন্তরের কথোপকথন নিচে উল্লেখ করা হলো :

অন্তর : স্যার, আসসালামু আলাইকুম।
প্রক্টর : অন্তর, তুমি তোমার ফোন থেকে এমন একটা অডিও বানাইলা কেন?
অন্তর : স্যার আমি তো কিছু জানি না।
প্রক্টর : তোমার ফোন থেকেই তো কথা হয়েছে।
অন্তর : কথা তো হয়েছে দুপক্ষ থেকে স্যার, আমার ফোন থেকে কিছু হয়নি স্যার, এইটা শিউর থাকেন।
প্রক্টর : তুমিই তো কথা বললা, তোমার ফোন থেকেই তো কথা বলাই দিলা।
অন্তর : আমার ফোন থেকে কথা হইছে, কিন্তু ওই পাশে তো রাব্বানী ভাই ছিল। এখন রেকর্ডটা কি ওই পাশ থেকে হইছে না কি গোয়েন্দা সংস্থা করছে সেটা তো আমি জানি না।

প্রক্টর : কবে তোমার সাথে এই কথা হইছে?
অন্তর : স্যার, পরশু দিন রাতে যখন রাব্বানী ভাইদের কমিটি ভেঙে যাচ্ছিল। তখন আমারে হঠাৎ করে ফোন দিছে রাব্বানী ভাই। তখন আমার সাথেই ছিল। তখন আমি বললাম, ভাই আমিতো বেশি কিছু জানি না, আপনি সাদ্দাম ভাইয়ের সাথে কথা বলেন। পরে সাদ্দাম ভাইয়ের সাথে কথা বললো। কথা বলে, আমার ফোন তো লক দেয়া আছে, আমার ফোনে তো কিছু করার সুযোগ নাই। ফোন কাটার সাথে সাথেই ফোনটা আমার হাতেই চলে আসে।

প্রক্টর : কিন্তু তোমার ফোন থেকেই তো কথোপকথনটা হলো রাব্বানীর সাথে।
অন্তর : স্যার, আমার ফোন থেকে কথোপকথন কিন্তু ওই পাশে তো রাব্বানী ভাই ছিলেন।

প্রক্টর : রাব্বানীর যদি এমন রেকর্ড থাকে তাহলে এতদিন করে নাই কেন? এতদিন তোমার সাথে কথা বলে আজকে সেটা প্রকাশ করতেছে কেন? ওই দিন করতো, কালকে করতো। নিজের হাতে ক্ষমতা নাই বলে বিশ্ববিদ্যালয়টাকে নষ্ট করতে চায় কেন?
অন্তর : স্যার, আমি তো বেশিকিছু বলি নাই, আপনি হয়তো শুনেছেন। আমি ধরাই দিছি ফোনটা।
প্রক্টর : হ্যাঁ, তুমি ধরাই দিছো ফোনটা। কিন্তু আল্টিমেটলি ফোনটা তো তোমার।
অন্তর : স্যার, আমার ফোনে ফোন দিতে পারে না স্যার? সে আমার নেতা না?
প্রক্টর : না, ফোন দিতেই পারে। কিন্তু এই যে গল্পগুলো; এই গল্পগুলো আগে বলেনি কেন? যদি এই গল্পগুলো থাকে?

অন্তর : স্যার, এই গল্পগুলো তো এখন টক অব দ্য টাউন। এটা তো অস্বীকার করারও কিছু নাই স্যার। জাহাঙ্গীরনগরের এইটা তো একটা চলমান ইস্যু। আমি কি এইটা অস্বীকার করব। রাব্বানী ভাই যখন আমারে ফোন দিয়ে জিজ্ঞাস করছে আমি কি অস্বীকার করব? সে আমার নেতা না?

প্রক্টর : তুমি কি অস্বীকার করবা, তোমাকে কি অস্বীকার করতে বলছি? তোমাকে তো আমি কিছু অস্বীকার করতেই বলি নাই। তুমি স্বীকার করবা বা অস্বীকার করবা সেটা তো তোমার ব্যাপার।

অন্তর : স্যার, আপনি তো ভালো করেই জানেন। আমি হয়তো বাইরে একরকম বলব, কিন্তু আমার ঘরে যখন কেউ জিজ্ঞাস করবে তখন তো আমি আর মিথ্যা বলব না।
প্রক্টর : আমি তোমাকে তো সত্য-মিথ্যা বলতে বলছি না।
অন্তর : আমার ফোন থেকে কিছু হয় নাই স্যার, এইটা শিউর থাকেন।
প্রক্টর : কিন্তু এই যে সাদ্দাম যে কথাগুলো বলছে, এই কথাগুলো কতটুকু সত্য?
অন্তর : স্যার, সত্য-মিথ্যার বিষয়টা তো জাস্টিফিকেশনের দায়িত্ব আমার না। রাব্বানী ভাই যদি সাদ্দাম ভাইয়ের সাথে কথা বলতো সেটাও ফাঁস হইতো। কিন্তু আমার ফোন থেকে কথা বলে ফাঁস হয়ে তো এটা কিছু হয়ে আসে না। এই জিনিসটা তো স্যার সবাই জানে, আপনিও জানেন।

প্রক্টর : না, আমি বলি তোমাকে, ফোনটা যেহেতু তোমার। দায়টা কিন্তু তোমাকেই নিতে হবে।
অন্তর : স্যার, ফোনালাপ ফাঁস হয় না? নির্বাচনের আগে দেখেন নাই আওয়ামী লীগ নেতাদের…
প্রক্টর : হ্যাঁ হয়। কিন্তু যেহেতু তোমার ফোনে করছে তুমি কি দায়টা এড়াইতে পারো?
অন্তর : স্যার, আমার কোনো দায় নাই স্যার, কারণ আমি করি নাই স্যার।
প্রক্টর : তুমি কর নাই ঠিক আছে, কিন্তু ধর বিশ্ববিদ্যালয়ের পেছনে এত বড় ষড়যন্ত্র। ওর অস্তিত্বে টান পড়ছে সেজন্য বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে এরকম করবে সে?
অন্তর : বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে ষড়যন্ত্র, বিষয়টা এরকম না স্যার। ছাত্রলীগ নিয়েও তো ষড়যন্ত্র চলতেছে স্যার, গত চার-পাঁচদিন ধরে।
প্রক্টর : এইটা তো জাহাঙ্গীরনগরের ইস্যুর সাথে না, তাদের বিরুদ্ধে তো পুরা গ্লোবাল ইস্যু আছে।
অন্তর : স্যার, আমি জাহাঙ্গীরনগরে না পড়লেও ছাত্রলীগ করতাম। আমার কাছে ছাত্রলীগ আগে।
প্রক্টর : সেটা তোমাকে আমি বলি নাই। ছাত্রলীগ আগে ভালো কথা। কিন্তু এখন জাহাঙ্গীরনগরে যেহেতু পড় জাহাঙ্গীরনগরে ছাত্রলীগ করো।

অন্তর : জাহাঙ্গীরনগর ছাত্রলীগ তো আর জাহাঙ্গীরনগরের সাথে তৈরি হয় নাই। এইটা সেন্ট্রাল ছাত্রলীগের একটা ইউনিট।
প্রক্টর : তুমি কিন্তু উল্টা দিকে কথা বলতেছো অন্তর।
অন্তর : না স্যার, আমি যৌক্তিক কথা বলতেছি। আমি আমার বাইরের লোক জিজ্ঞাস করলে আমি একটা কথা বলব। কিন্তু ঘরের লোক জিজ্ঞাস করলে আমি কি উল্টাপাল্টা কথা বলব? আমি কি বলব, ভাই হ্যাঁ এরকম কিছু ঘটে নাই।
প্রক্টর : আমি তোমারে বলি, তুমি জাহাঙ্গীনগরে যদি না পড়তা, জাহাঙ্গীনগরের ছাত্রলীগ হিসেবে কিন্তু ইস্টাবলিস হতে না। জাহাঙ্গীরনগর ছাত্রলীগ হিসেবেই তোমার পরিচয়।

অন্তর : স্যার, ক্যাম্পাসের ৪৪ থেকে ৪৫ ব্যাচ পর্যন্ত টাকা পাইছে। আমি এটা গোপন রাখার কে স্যার?
প্রক্টর : আচ্ছা তোমাদের কে টাকা দিলো আর কে টাকা দেয় নাই সেটা দেখার দায়িত্ব কি আমার?
অন্তর : স্যার আমাকেও তো টাকা সাধছে, আমি তো নেই নাই স্যার।
প্রক্টর : না তোমাকে কে সাধছে, না সাধছে সেটা তো আমি জানি না। কে দিয়েছে সেটা দেখার দায়িত্ব আমার নাকি?
অন্তর : স্যার, আপনি যদি চান আমি আপনাকে প্রমাণ দেখাতে পারব। ৪৪ থেকে ৪৫ ব্যাচও টাকা পাইছে।
প্রক্টর : আরে বাবা, এইটা নিয়ে কেন তুমি পড়ে আছো? টাকা কে দিছে, আমি তো সেটা জিজ্ঞাস করছি না।

এদিকে এই ফোনালাপ ফাঁস করায় প্রক্টর তাকে হুমকি দিয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন অন্তর। অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে প্রক্টর ফিরোজ-উল-আলম বলেন, অন্তরের সঙ্গে আমার ব্যক্তিগত সম্পর্ক খুবই ভালো। আমি আসলে ফোনালাপের বিষয়ে বিস্তারিত জানার জন্য ফোন দিয়েছি। সে অভিযোগ করছে আমি হুমকি দিয়েছি। আসলে এখানে হুমকিস্বরূপ একটা শব্দও নেই। অন্তর আসলে হতাশা থেকে এমন অভিযোগ করেছে।

Print Friendly, PDF & Email

About banglarmukh official

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*