যৌবনের উম্মাদনায় মানুষ নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করবে যেভাবে

Sharing is caring!

ইসলাম ডেস্ক:

তরুণ যুবকদের মাঝে বয়ঃসন্ধিক্ষণে এক ধরনের কামনা বাসনা বা হতাশা কাজ করে। যারা যৌবনের সব কামনা-বাসনা ও হতাশা থেকে নিজেকে নিয়ন্ত্রণে সক্ষম তারাই সফলকাম। টগবগে যুবকের সে সময়ের কোনো ইবাদতই আল্লাহ ফিরিয়ে দেন না।

তাই প্রতিটি যুবকের জন্যই নির্মল চরিত্রের অধিকারী হতে প্রয়োজন কুরআন-সুন্নাহর জ্ঞান। যৌবনের কামনা-বাসনার অপরাধগুলো মানুষের শারীরিক রোগের ন্যায়। সঠিক দিক-নির্দেশনায় এসব অপরাধমূলক রোগ থেকে মুক্ত থাকা সম্ভব।

মানুষ যেমন অসুস্থ হয়ে গেলে চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহণ করে তেমনি কোনো যুবক যদি চারিত্রিক সমস্যায় পতিত হয়, তার জন্যও রয়েছে চিকিৎসাস্বরূপ বিশ্বনবির সেরা উপদেশ। যে উপদেশ গ্রহণে যে কোনো যুবকই হয়ে উঠবে উন্নত নৈতিক চরিত্রের অধিকারী।

সে কারণেই প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পাপ কাজে নিমজ্জিত সব ব্যক্তিকেই রোগী হিসেবে চিহ্নিত করতেন। যার যে উপদেশ প্রয়োজন তাই তিনি প্রদান করতেন। হাদিসে এ রকম অসংখ্য প্রমাণ রয়েছে। যেমনটি ব্যভিচারের ক্ষেত্রেও রয়েছে।

শুধু তা-ই নয়, যদি কারো কোনো অসুবিধা বা সমস্যা নিজের (বিশ্বনবির) মধ্যে থাকতো তবে তিনি আগে সে কাজের সমাধান নিজের মধ্যে বাস্তবায়ন করতেন, তারপর অন্যকে তা থেকে বিরত থাকতে উপদেশ দিতেন।

যুবকদের অবৈধ চারিত্রিক কামনা-বাসনা থেকে দূরে রাখতে বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এক কুরাইশ যুবককে নসিহত পেশ করেছেন। এ উপদেশটি বর্তমান সময়ের জন্যও খুবই উপযোগী। হাদিসে সে ঘটনার বর্ণনাটি এভাবে এসেছে-

একবার এক কুরাইশ যুবক রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কাছে ব্যভিচারের অনুমতি প্রার্থনা করে। উপস্থিত সাহাবায়ে কেরাম যুবকের কথায় রেগে গিয়ে তাকে শাস্তি দিতে উদ্যত হলেন। কিন্তু বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের দৃষ্টিভঙ্গি ছিল সম্পূর্ণ ভিন্ন।

তিনি শান্ত চিত্তে যুবককে আরও কাছে টেনে নিলেন। তারপর (যুবককে প্রশ্ন রেখে) বললেন-
‘তুমি কি তোমার মায়ের জন্যে এটা (ব্যভিচার) মেনে নেবে?
যুবক উত্তর দিলেন, ‘না’,।
রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, ‘(অন্য) লোকেরাও এটা তাদের জন্যে অনুমোদন করবে না।’

অতঃপর তিনি যুবককে আলাদা আলাদা করে বারবার তার কন্যা, বোন ও চাচির জন্য (ব্যভিচার) অনুমোদনের বিষয়ে প্রশ্ন করেন। আর প্রতিবারই যুবক ‘না’বোধক উত্তর দিতে থাকে।

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম প্রতিবারই বলতে থাকেন যে, (অন্য) ব্যক্তিরাও তাদের জন্য এটা (ব্যভিচার) অনুমোদন করবে না।’

তারপর তিনি যুবকের হাত ধরে বললেন, ‘আল্লাহ্ তার (যুবকের) পাপ ক্ষমা করুন। তার অন্তর পবিত্র করুন এবং তাকে সহিষ্ণু করুন (ব্যভিচারের কামনার বিরুদ্ধে)।’ (মুসনাদে আহমদ, তাবরানি)

বর্তমান সময়ে ধর্ষণের অপরাধ প্রবণতা কমাতে এবং বিপদগামী যুবকদের সচেতন করে তুলতে ব্যক্তি, পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রীয়ভাবে হাদিসের এ আবেদন তুলে ধরা জরুরি। যার ফলে সমাজ ধর্ষণ জিনা-ব্যভিচার মুক্ত হবে।

যুবক-তরুণদের কোনো সমস্যায় হতাশ হওয়া যাবে না। যে কোনো সমস্যা ইসলামের আলোকে শান্তি ও নিরাপত্তা বিধানের চেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে। তাইতো বান্দাকে এ ঘোষণা জানিয়ে দিতে বিশ্বনবিকে আল্লাহ তাআলা নির্দেশ দেন-

(হে রাসূল! আপনি) বলুন, হে আমার বান্দাগণ! যারা নিজেদের উপর অত্যাচার করেছ, তোমরা আল্লাহর রহমত থেকে নিরাশ হবে না। নিশ্চয় আল্লাহ তোমাদের সব গোনাহ ক্ষমা করেন। তিনি ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।’ (সুরা যুমার : আয়াত ৫৩)

সুতরাং যুবক যত বড় অপরাধীই হোক না কেন কিংবা যত অপরাধেই জড়িত হোক না কেন, ইসলামের উদাত্ত আহ্বান হলো- সর্বাবস্থায় কুরআন-সুন্নাহর নির্দেশ ও উপদেশ অনুযায়ী জীবন পরিচালনা করা। আর তাতে জীবন হবে সফল ও স্বার্থক।

সে কারণেই বান্দাকে অন্যায় থেকে ফিরে থাকার সতর্কতামূলক নির্দেশও বিশ্বনবিকে জানিয়ে দিতে বলেছেন-
‘তোমরা তোমাদের পালনকর্তার দিকে ফিরে আস এবং তোমাদের কাছে আজাব আসার আগেই তাঁর নির্দেশ মেনে চল। তারপর (শাস্তি আসার পর) তোমরা সাহায্যপ্রাপ্ত হবে না।’ (সুরা যুমার : আয়াত ৫৪)

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহর সব যুবককে কুরআনের নির্দেশ মেনে চলার পাশাপাশি হাদিসের উপদেশ গ্রহণ করার তাওফিক দান করুন। নির্মল ও নিষ্কলুষ চরিত্রের অধিকারী হওয়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।

Print Friendly, PDF & Email

About banglarmukh official

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*